বিশ্বাস ও প্রত্যয়

وَبِالۡاٰخِرَةِ هُمۡ يُوۡقِنُوۡنَؕ‏
‘আখিরাতের উপর তাদের বিশ্বাস মজবুত।‘। হযরত মুফতী শফী (রহঃ) বলেন, এটি কুরআন শরীফের প্রথম পাতার আয়াত। ডান দিকে সূরা ফাতিহা, বাম দিকে সূরা বাকারা। আল্লাহ্‌ তাআলা বলছেন,
الَّذِيۡنَ يُؤۡمِنُوۡنَ بِالۡغَيۡبِ وَ يُقِيۡمُوۡنَ الصَّلٰوةَ وَمِمَّا رَزَقۡنٰهُمۡ يُنۡفِقُوۡنَۙ‏ ﴿﴾ وَالَّذِيۡنَ يُؤۡمِنُوۡنَ بِمَۤا اُنۡزِلَ اِلَيۡكَ وَمَاۤ اُنۡزِلَ مِنۡ قَبۡلِكَۚ وَبِالۡاٰخِرَةِ هُمۡ يُوۡقِنُوۡنَؕ‏
‘যারা ঈমান আনে গায়ীবের উপরে, যারা নামায কায়েম করে, আর আমি তাদেরকে যে রিযিক দিয়েছি সেখান থেকে যারা তাদের মাল খরচ করে। যারা ঈমান আনে তাতে, যা আপনার উপর নাযিল হয়েছে এবং আপনার আগে যা নাযিল হয়েছে। আর আখিরাতকে যারা নিশ্চিত বিশ্বাস করে।‘

মানে পূর্ববর্তী সব নবীদের উপরে আমাদের ঈমান। এখানে শেষ কথা হলো, আখিরাতের উপর তাদের বিশ্বাস মজবুত। হযরত মুফতি শফি (রহঃ) বলেন, এখানে আল্লাহ্‌ বলেননি, وَبِالۡاٰخِرَةِ هُمۡ يُؤۡمِنُوۡنَ । তিনি বলেছেন, وَبِالۡاٰخِرَةِ هُمۡ يُوۡقِنُوۡنَ । এখন এ দুটোর মধ্যে পার্থক্য কী? يُؤۡمِنُوۡنَ শব্দ ব্যবহার করলে অর্থ হতো, আখিরাতের উপর বিশ্বাস করে আর يُوۡقِنُوۡنَ মানে দৃঢ়ভাবে মজবুত ভাবে, চরমভাবে বিশ্বাস করে। যেন এটি একটি প্রত্যয়। আমি যেন চোখে দেখছি। এরকম ভাবে আখিরাতে উপর বিশ্বাস করা তাঁরা। এই বিশ্বাস সাহাবীদের ছিলো। হযরত আলী(রাযিয়াল্লাহুতাআলা আনহু) বলেন, আল্লাহ্‌র রাসূলের কাছে শুনে শুনে আখিরাতের উপর বিশ্বাস আলহামদুলিল্লাহ আমার এমন হয়েছে যে, দোযখ কেমন, জান্নাত্ কেমন- আজকে যদি স্বচক্ষে জান্নাত দেখি আর জাহান্নাম দেখি তা হলে আমার প্রত্যয়ে বিন্দুমাত্র বৃদ্ধি ঘটবেনা। আমাদের কি সে রকম ঈমান? আখিরাতে উপর তাঁদের বিশ্বাস অত্যন্ত মজবুত, ইয়াক্বীন করে তাঁরা। সুদৃড়ভাবে বিশ্বাসী তাঁরা।
একটি কথা হল, তাওহীদ। এক আল্লাহ্‌র উপর বিশ্বাস। কোন রকমে কোন কিছুর সঙ্গে তাঁর কোন শরীক করা যাবেনা। দুই, রাসুলদের উপর বিশ্বাস। যদি কেউ বলে, মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ মানি কিন্ত তাঁর আগের নবীদের মানি না – তা হলে হবে না তার ঈমান।
كُلٌّ اٰمَنَ بِاللّٰهِ وَمَلٰٓٮِٕكَتِهٖ وَكُتُبِهٖ وَرُسُلِهٖ
‘সকল ঐশী কিতাবের উপর ঈমান, সকল পূর্ববর্তী নবী তাঁদের সবার উপর বিশ্বাস।‘ কেন? তাঁরা একই ইসলাম নিয়ে এসেছেন। যুগে যুগে আল্লাহ্‌ তাআলা একই ইসলাম পাঠিয়েছেন। সেই ইসলামেরই সর্বশেষ ধাপ হযরত মুহাম্মাদ মুস্তফা (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)। আর এর মূল কথা, তোমার প্রতিপালক তোমাকে অহেতুক তৈরী করেননি। তোমাকে তাঁর সামনে দাঁড়াতে হবে, এ কথাটি যদি প্রত্যয় হয়, তাহলে আচরণ হবে ভিন্ন। একটি হচ্ছে বিশ্বাস আর একটি হচ্ছে প্রত্যয়। প্রত্যয় শব্দটি বাংলায় ব্যবহার হয় অনেক বেশী মজবুত বিশ্বাস বুঝানোর জন্য। যেমন দেখলে মনে হয় যে, এই দেখলাম। এই পর্যায়ের বিশ্বাস। সাহাবীকেরামগণ এই বিশ্বাসের পর্যায়ে গিয়েছিলেন। যার জন্য আলী(রাযিয়াল্লাহু আনহু) ঐ কথা বলতেন।

-হযরতের বয়ান সংকলন ‘ইসলামের দাবী ও আমাদের বাস্তব জীবন’ থেকে সংগৃহীত

Facebooktwittergoogle_pluspinterestmailby feather

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *