All posts by tousif

আমি কুরআনকে সহজ করে দিয়েছি বোঝার জন্যে

হযরত বলেন, সূরা আর-রহমানের প্রথম আয়াত, الرَّحْمٰنُ ¬- মহা করুণাময়। দুই নম্বর আয়াত, عَلَّمَ الْقُرْاٰنَ – তিনি কুরআন শিখিয়েছেন। মহা করুণাময়ের সর্বশ্রেষ্ঠ করুণা কী? কুরআন শিক্ষা দেওয়া। সূরা কামারে আল্লাহপাক চার বার একটা কথা বলেছেন :

وَلَقَدْ يَسَّرْنَا الْقُرْاٰنَ لِلذِّكْرِ فَهَلْ مِنْ مُّدَّكِرٍ

আমি কুরআনকে সহজ করে দিয়েছি বোঝার জন্যে। অতএব, কোন চিন্তাশীল আছে কি?

আয়াত নম্বর সতেরো, বাইশ, বত্রিশ এবং চল্লিশ। একই সূরায় চার চারবার একই আয়াত। আমি কুরআনকে বড় সহজ করে দিয়েছি নসিহত গ্রহণ করার জন্য। তিলাওয়াত করা, মূল নসিহতকে গ্রহণ করা অতি সোজা। আবার অন্যত্র আল্লাহ তা‘আলা বলেন,

أَفَلَا يَتَدَبَّرُوْنَ الْقُرْاٰنَ أَمْ عَلٰى قُلُوْبٍ أَقْفَالُهَا

তারা কি কুরআন সম্পর্কে গভীর চিন্তা করে না? না তাদের অন্তর তালাবদ্ধ?

তারা কি কুরআন নিয়ে গভীরভাবে চিন্তা করে না? গভীরভাবে চিন্তার জন্য অনেক স্টাডি দরকার। উলামায়ে কেরাম বলেন, সূরা কামারে যে আল্লাহ বলেছেন, কুরআনকে সহজ করে দিয়েছেন, এর মানে কী? কুরআনের আয়াতের মোটামুটি অর্থ বোঝার জন্য কুরআন অদ্ভুত সহজ, তিলাওয়াতের জন্য অদ্ভুত সহজ।

এজন্য বলেছেন, فَهَلْ مِن مُّدَّكِرٍ—আছে কেউ? আছে তোমার একটু সময়? আমি তোমাকে বানিয়েছি। তোমাদের রিযিক দেই। বাতাসে অক্সিজেন আমার দেওয়া। আকাশ থেকে পানি আমি দেই। জমিন থেকে ফসল আমি দেই। আমি নবীর মাধ্যমে কুরআন দিয়েছি। তোমার একটু সময় হবে?

আমাদের অঘোষিত জবাব, সরি আল্লাহ, আমার সময় নেই। মুখে বলি না; কিন্তু আসলে কর্মকান্ডে তা-ই। আল্লাহ, আমার অনেক কাজ। কুরআন নিয়ে অবসর নাই। এমন একটা ভাব—আল্লাহ, আপনি তো বোঝেন না, কত কাজে দৌড়াদৌড়ি করি! তবু ভালো, আল্লাহকে মানি। আল্লাহকে বিশ্বাস করি। আল্লাহ আমাদের হেফাজত করেন।

Facebooktwitterpinterestmailby feather

আরবি উচ্চারণ

হযরত বলেন, ‘আমাদের বেশীর ভাগ ইংরেজি শিক্ষিত লোকের আযীম (اَلْعَظِيْمُ) উচ্চারণ সহীহ হয় না। বিসমিল্লাহীর রাহমানীর রাহীম বলার সময় বিসমিল্লাহ-এর লাম-এর উচ্চারণ বারিক বা (পাতলা) হবে।  অন্যদিকে আল্লাহ শব্দ উচ্চারণ করার সময় লাম-এর উচ্চারণ পুর (মোটা) করে পড়তে হবে।’

Facebooktwitterpinterestmailby feather

গলদ আকিদা আর তার প্রতিকার

হযরত বলেন, হযরত হাফেজ্জী হুজুর রহমাতুল্লাহি আলাইহি এবং হরদুই হযরত রহমাতুল্লাহি আলাইহি দুজনই বার বার বলতেন, খাঁটি হক্কানী উলামায়ে কেরামের সাথে থাক। তাদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে মেলামেশা করো। গলদ আকিদা সর্বনাশের জিনিস। আমলের কমি অত নিন্দনীয় না। গলদ আকিদা সর্বনাশের মূল কারণ। এখন জায়গায় জায়গায় মকতব প্রতিষ্ঠা করে খাটি আল্লাহ্‌ ওয়ালা ওস্তাদ দিয়ে সেগুলো চালানো খুব প্রয়োজন। যে শিশু ছোটবেলায় আকীদার মৌলিক জিনিসগুলো শিখবে, সে ইনশাআল্লাহ গলদ আকিদার পাল্লায় পড়বে না।

অজ্ঞতার রোগ বাহ্যিক পিটাপিটি করলে যাবে না। কাকরাইলের মুরুব্বি হাজি আব্দুল মুকিত সাহেব বার বার বলতেন, ‘অন্ধকার ঘরে লাঠি পেটালে অন্ধকার দূর হবে না। একটা ছোট মোমবাতি জ্বালাও।’ আল্লাহ্‌র দ্বিনের মৌলিক কাজঃ এক নম্বরে ফুরকানিয়া মকতব প্রতিষ্ঠা করা। আর দ্বিতীয় কাজ হচ্ছে, জায়গায় জায়গায় দ্বীনি কথাবার্তার মজলিস চালু করা। ক্লাবে, মাঠে, স্কুলে, মাদরাসায়, ছোট ছোট মজলিসে খাঁটি উলামায়ে কেরামের নসিহত মানুষকে শোনানো দরকার।

Facebooktwitterpinterestmailby feather

আহবান শুনেছি, ঈমান এনেছি

হযরত বলেন, আজকে ক্কারী সাহেব ফজরের নামাযে কুরআন মাজীদের এক অপূর্ব জায়গা তিলাওয়াত করেছেনঃ

رَبَّنَاۤ اِنَّنَا سَمِعۡنَا مُنَادِيًا يُّنَادِىۡ لِلۡاِيۡمَانِ اَنۡ اٰمِنُوۡا بِرَبِّكُمۡ فَاٰمَنَّا

হে আমাদের প্রতিপালক, আমরা এক আহবায়ককে ঈমানের দিকে আহবান করতে শুনেছি, ‘তোমরা তোমাদের প্রতিপালকের প্রতি ঈমান আন।’ সুতরাং আমরা ঈমান এনেছি।

অদ্ভুত কথা! আমরা এটাকে যাচাই বাছাই করতে যাইনি। আহবান শুনেই ঈমান এনেছি। সবাই স্বীকার করে যে, একজন প্রতিপালক আছেন। যারা আল্লাহ্‌কে বিশ্বাস করে না, তারাও স্বীকার করতে বাধ্য।

তুমি বাতাস থেকে যে অক্সিজেন নিচ্ছ, তা এই বাতাসের মধ্যে কে ভরে দিলেন? বিজ্ঞানীরা বলেন যে, আমাদের চারদিকে যে বাতাস, এটা একটা মিশ্রণ। বাতাস কোনো যৌগিক পদার্থ নয়। এই মিশ্রণের শতকরা ৭৮ ভাগ নাইট্রোজেন গ্যাস, ২১ ভাগ অক্সিজেন, ০.৯ ভাগ আর্গন। ১০০ ভাগের মধ্যে ৯৯.৯ ভাগ গেল, বাকি  থাকে ০.১ ভাগ। তার মধ্যে রয়েছে অন্যান্য গ্যাস। সারা দুনিয়া জুড়ে বাতাসে অক্সিজেন আছে। যদি এমন হতো –  বাংলাদেশ অক্সিজেনের পরিমাণ শতকরা ১৭ ভাগ,  আর আমেরিকাতে ২১ ভাগ। ডাক্তারগণ বলেন যে, তাহলে শ্বাস নিতে কষ্ট হতো। বাতাস একটা মিশ্রণ হলেও সারা দুনিয়ায় এই মিশ্রণের অনুপাত একই রকম। যদি আপনাদের মধ্যে কয়েকজনকে চিনির সরবত বানাতে দেওয়া হয়, তাহলে সরবতে চিনির পরিমাণের মধ্যে পার্থক্য হবে কি হবে না? বাতাসের মিশ্রণ সারা দুনিয়া জুড়ে এক। এটা কোনো মানুষের কাজ নয়, মহান প্রতিপালকের অনুগ্রহ।

'প্রফেসর হযরতের মালফুযাত '- হতে সংগৃহীত
Photo credit:  Ali Arif Soydaş on Unsplash
Facebooktwitterpinterestmailby feather

আমি কিভাবে আল্লাহর শোকর আদায় করব

হযরত বলেন, শাইখুল হাদিস আল্লামা হযরত আযিযুল হক সাহেব রাহমাতুল্লাহি আলাইহি বলতেন, ‘আমি কিভাবে আল্লাহ্‌র শোকর আদায় করব যে, আমার মেয়েগুলো সবাই আল্লাহ্‌ পাকের কালামের সাথে এত মহব্বত রাখে! আমার আটজন মেয়ে, সবাই কুরআনের পাগল।’ শাইখুল হাদিস রাহমাতুল্লাহি আলাইহির পরিবারের মেয়েরা, নাতি নাতনি সবাই হাফেজ-হাফেজা। পুরো পরিবারে এক অদ্ভুত ফুল বাগানের দৃশ্য।

Facebooktwitterpinterestmailby feather

পুরনো মানুষদের নিয়েই মাহফিল করো

হযরত বলেন, ঘরোয়া মাহফিলে আমরা একই চেহারা বার বার দেখি। সচরাচর যারা পরিচিত, তারাই আসে। আমরা বলি, ‘মাহফিলে নতুন লোক আসেনা।’ অসুবিধা নেই। সূরা ইয়াসিনে আল্লাহ বলেন

إِنَّمَا تُنذِرُ مَنِ اتَّبَعَ الذِّكْرَ

‘আপনি কেবল তাদের সতর্ক করুন যারা নসিহত অনুসরণ করে।’

নসিহত অনুসরণ করে কারা? পুরনো মানুষেরাই তো। তাদের নিয়েই মাহফিল করো।

Facebooktwitterpinterestmailby feather

কুরআন হেফয-১

হযরত বলেন, ‘হেফয ছাড়া কুরআন শরীফ তেলাওয়াতের মজা পাওয়া কঠিন। আমি বলি, হেফয না করলে কুরআন স্বাভাবিকভাবে তিলাওয়াতও করা যায়না। আমরা যখন কুরআন পড়ি, তখন নাতিরা বলে উঠে, ‘নানা! এখানে ভুল হয়েছে।’ হেফযের পর তাকে আলেমও হতে হবে। তবেই সে কুরআনের আসল স্বাদ পাবে। একদিন একটা কাজে ব্যাংকে গিয়েছি। ব্যাংকের ম্যানেজার সাহেবের সাথে কথা হচ্ছে। যখন তিনি জানলেন যে, আমি আমার সন্তানদের হাফেজ বানিয়েছি, তখন বলে উঠলেন, ‘কেন আপনি ছেলেমেয়েদের সময় নষ্ট করলেন?’ অথচ কুরআন মুখস্থ না থাকলে কুরআনের আয়াত পরম্পরায় সম্পর্ক ও অর্থ বুঝে আসবে না।’

  • ‘প্রফেসর হযরতের মালফুযাত’ – বই থেকে সংগৃহিত
Facebooktwitterpinterestmailby feather