মসজিদে মহিলাদের গমন

হযরত বলেন, এক মহিলা সাহাবা বলেন, ‘মসজিদে নববীর বেড়া খেজুর পাতার বেড়া। আমার বাড়ির বেড়া ছিল মসজিদের বেড়ার পর। আমি দুপুর বেলার রুটি বানানোর জন্য আটা গুলতাম। এই সময় জুমার জামাত দাঁড়াত। রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) জুমার বয়ানের মধ্যে বলতে গেলে পুরো সূরা ক্বাফ আবৃত্তি করতেন। তাঁর মুখে শুনে শুনে আমার সূরা ক্বাফ মুখস্থ হয়েছে।’ এখান থেকে একটা বিষয় বের হয়। মসজিদের পাশেই মহিলা সাহাবি। তিনি কেন পুরুষের সাথে নামাযে আসলেন না। আমরা মসজিদে মহিলাদের জন্য পৃথক ঘর বানাই। এজন্য যদি নামাযের ঘর বানানো হয় যে পথিক মহিলারা নামাযের জন্য জায়গা পান না, তাহলে ঠিক আছে। কিন্ত আমরা যেভাবে ঢালাও ভাবে Encourage করি, এটা নাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.